মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
ইউনিয়ন কৃষি অফিস
  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

# কি সেবা কি ভাবে পাবেন :

  ১। সকল শ্রেনীর কৃষকদের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ সহায়তা প্রদান

  ২। কৃষি সম্প্রসারণ সেবা প্রদান

  ৩। সকল শ্রেনীর কৃষকদের সাথে কাজ করা

  ৪। কৃষি গবেষণা ও কৃষি সম্প্রসারণ সম্পর্ক জোরদার করণ

  ৫। কৃষক ও সম্প্রসারণ কর্মিদের প্রশিক্ষণ দান

  ৬। পরিবেশ সংরক্ষনে সমন্বিত সহায়তা প্রদান

  ৭। উপজেলা ও কৃষক পর্যায়ের কৃষি দপ্তর পরিদর্শন ও দিক নির্দেশনা প্রদান এবং প্রশাসনিক কর্মাদি সম্পাদন

  ৮। কৃষি বিষয়ক গু্রুত্বপূর্ণ সময়োপযুগী তথ্য

· কৃষকের  তথ্য চাহিদা নিরুপণ নিশ্চিত করা।

· মান সম্মত সম্প্রসারণ কর্মসূচি তৈরী করা।

· কৃষক এবং কারিগরী ষ্টাফদের জন্য প্রশিক্ষণ সামগ্রী তৈরী করা।

· ব্লকপর্যায়ে যে সব সমস্যা ডিএই সমাধান করতে পারছে না তা টিএইসিসি এর মাধ্যমেঅন্যান্য সহযোগী সংস্থাকে অথবা জেলার বিশেষজ্ঞদের    জানানো।

· কৃষি উপকরণ সরবরাহকারী, কৃষি পণ্যের বাজারজাতকারীসহ উপজেলা পর্যায়ে কৃষক সমিতি ও অন্যান্য সংস্থার সাথে যোগসূত্র রক্ষা করা।

· শস্যবহুমুখীকরণ, সম্প্রসারণ পদ্ধতি, উপকরণ ও ঋণ সরবরাহ এবং কৃষকদের মধ্যেপ্রযুক্তি হস্তান্তর ইত্যাদি বিষয়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের উন্নত মানের পরামর্শ দেয়া।

· মাঠ পর্যায়ে বিবিধ অনুষ্ঠানে ( যেমন-চাষী র‌্যলি, মাঠ দিবস, উদ্ধুদ্ধকরণ ভ্রমণ) উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের সহায়তা দান করা।

· উপজেলা পর্যায়ের সম্প্রসারণ কর্মকান্ড (যেমন- কৃষি মেলা, কৃষক প্রশিক্ষণ) পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন করা।

· টিএইসিসি এর মাধ্যমে অন্যান্য সম্প্রসারণ সেবা দানকারীদের সংগে সম্পর্ক ও কাজের সমন্বয় করা।

· উপজেলা পরিকল্পনা কর্মশালা অনুষ্ঠান ও পরিচালনা করা।

· ষ্টাফদের প্রশিক্ষণ চাহিদা নিরুপণ ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া।

· পাক্ষিক উপজেলা প্রশিক্ষণ দিবস পরিকল্পনা ও আয়োজন করা।

· পাক্ষিক কর্মসূচি ব্যবস্থাপনা পর্যালোচনা সভা ও মাঠ পরিদর্শনের মাধ্যমে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের কাজকর্ম পরিক্ষণ নিশ্চিত করা।

· উপজেলা পর্যায়ে সেমস ও ক্যাপ ব্যবস্থাপনা ও সমন্বয় করা।

· ডিইপিসি এবং অন্যান্য সভায় অন্তত একজন উর্দ্ধতন কর্মকর্তার যোগদান নিশ্চিত করা।

· উপজেলার বাজেট ব্যবস্থাপনা এবং সময়মতো হিসাব নিকাশ নিশ্চিত করা।

· উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের কাছ থেকে জরুরী আপৎকালীন তথ্যসহ অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ এবং তা যথাযথ ফরমে জেলা, অঞ্চল বা সদর দপ্তরে প্রেরণ করা।

সারের নাম

চিনিবার উপায়

প্রধান উপাদানের শতকরা পরিমাণ

বৈশিষ্ট্য

ব্যবহার/কাজ

ইউরিয়া

স্বচ্ছ সাদা রং এবং দানাদার সার

নাইট্রোজেন ৪৬%

বাতাসের সংস্পর্শে উড়ে যায় Volatilization, পানিতে সহজেই দ্রবণীয় Leaching, জমিতে বেশি পানিতে ধূয়ে যায় Run Off

জমিতে উপরি প্রয়োগ হিসাবে বেশী ব্যবহার হয়।

টি.এস.পি

ট্রিপল সুপার ফসফেট মেটে রং দানাদার ও পাউডার হয়ে থাকে।

ফসফেট ৪৫-৪৮%

ক্যালসিয়াম ১৩%

পানিতে দ্রবণীয় । ক্ষার মাটিতে কিছু অদ্রবনীয় থাকে। গাছের গ্রহণ উপযোগী হতে সময় লাগে।

এইসব গাছ বা চারার শিঁকড় বিসত্মার ঘটে এবং ফুল ফল উৎপাদনে সহায়তা করে। জমি তৈরীর শেষ পর্যায় এ সার ব্যবহার করা হয়।

এস.এস.পি

ছাই রংয়ের পাউডার বা দানাদার,  সিঙ্গেল সুপার ফসফেট

ফসফেট ১৬-১৮%

সালফার ১০-১৪%

ক্যালসিয়াম ১৮-২০%

টিএসপির পরিবর্তে এটি ব্যবহৃত হয়।

জমি তৈরীর সময় এ সার ব্যবহার করা হয়।

এম.পি

মিউরেট অব পটাশ, লাল রং-এর দানা

পটাশ  - ৬০%

পটাশিয়াম ৫০%

ইউরিয়া থেকে দ্রম্নত এবং টিএসপি থেকে কময় সময়ে দ্রবনীয়।

রোগ, পোকা-মাকড় আক্রমণ রোধে সাহায্য করে এ সার ব্যবহারে।

দসত্মা সার

জিঙ্ক সালফেট , সাদা ধূসর

সালফার -১২-১৮%

দসত্মা- ৩৬%

প্রথম ফসলে ব্যবহার করলে পরবর্তী ২য়  ও ৩য় ফসলে ব্যবহার ধরকার নেই।

এর অভাবে কচি পাতা গোড়া সাদা এবং পুরাতন পাতায় মরিচা পড়ে।

জিপসাম

জিপসাম (গন্ধক) সাদাটে  পাউডারের মতো।

সালফার ১৮%

ক্যালসিয়াম ৩০%

প্রথম ফসলে সঠিক পরিমাণে ব্যবহার করলে পরবর্তী ফসলে ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই।

ফসলের পাতায় হলদে ফ্যাকাসে রং দূর করে এবং কচি পাতা কুচঁকে যাওয়া এবং আগা চিকন হয়ে যাওয়া থেকে রÿা করে।

ডিএপি

গাঢ় ধূসর দানা, ডাই অ্যামোনিয়াম ফসফেট

নাইট্রোজেন-১৮% ফসফেট - ৪৬%

ফসফরাস ও নাইট্রোজেন মিশানো অবস্থায় থাকে।

ফসলের চারা বৃদ্ধি হয়। শিকরের বিসত্মার ঘটে এবং ফুল ফলের উৎপাদন বাড়ে।

ছবি নাম মোবাইল
মোঃ সিরাজুল ইসলাম ০১৯১১৮৫২৬৯২
মোঃ ফরিদ উদ্দিন ০১৭১১৭১১৫৯৭

ছবি নাম মোবাইল
মোঃ সিরাজুল ইসলাম ০১৯১১৮৫২৬৯২

ছবি নাম মোবাইল

# গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প :

            * ধান ফসলের ফলন পার্থক্য কমানো প্রকল্প,

            * চাষী পর্যায়ে উন্নত মানের বীজ উৎপাদন,সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প (ধান, পাট, গম),

            * চাষী  পর্যায়ে উন্নত মানের বীজ উৎপাদন, সংরÿণ ও বিতরণ প্রকল্প (ডাল, তেল, পিয়াজ),

            *  এস সি ডি পি

            * আই সি এম ।

দেবিদ্বার উপজেলা সদর থেকে  10 কিঃমিঃ পূর্বে ফতেহাবাদ ইউনিয়ন অবস্থিত। ফতেহাবাদ ইউনিয়নের খলিলপুর গ্রামে খলিলপুর বাজার সংলগ্ন ইউনিয়ন পরিষদ অবস্থিত

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়

ফতেহাবাদ , দেবিদ্বার, কুমিল্লা